E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

‘হেয়ার ক্যাপ’ তৈরি করে স্বাবলম্বী দিনাজপুরের ৫০ হাজার নারী

২০২২ মার্চ ০৭ ১৬:২০:১০
‘হেয়ার ক্যাপ’ তৈরি করে স্বাবলম্বী দিনাজপুরের ৫০ হাজার নারী

শাহ্ আলম শাহী, দিনাজপুর : দিনাজপুরের প্রত্যন্ত পল্লীর নারীরা সংসারের অভাব মোচনে, ভিন্নতর এক পেশা বেঁছে নিয়েছেন। গ্রাম-গঞ্জ থেকে সংগ্রহ করে আনা চুলের জট ছাড়িয়ে এবং হেয়ার ক্যাপ তৈরি করে মাসে রোজগার করছেন ৬ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা। এতে সংসার থেকে অভাব দুর করতে পেরেছেন দিনাজপুরের নবাবগঞ্জের প্রত্যন্ত এলাকার ১৫ টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার পরিবারের ৫০ হাজার নারী। মুলতঃ নারীরাই এ ব্যতিক্রম পেশার উদ্যোগতা।

নারীরা মাথা আঁচড়ানোর পর ফেলে দেন তাদের জট বাধা চুল। আর সেই জট বাধা চুল সংগ্রহ করে এনে জট ছড়ানো এবং হেয়ার ক্যাপ তৈরি এদের কাজ। অন্যান্য পেশার মতোই ৮ ঘন্টার পরিশ্রমে নিজেদের সংসারের কাজের ফাঁকেই নারীরা এ ব্যতিক্রম কাজ করে খুঁজে পেয়েছেন স্বাবলম্বী হওযার পথ।

জট বাধা চুলের জট ছাড়িয়ে তা দিয়ে তৈরী করছেন হেয়ার ক্যাপসহ চুলেরই নানা পন্য। পরিশ্রমের সাথে মজুরীর সংহতি থাকায় স্থানীয় নারীরা সংসারের পলাতক মূহুর্তগুলোকে কাজে লাগাচ্ছেন। বাড়তি উপার্জন করে সংসার থেকে দূর করছেন অভাব। এমনটাই জানালেন, এ ব্যতিক্রম পেশায় নিয়োজিত মরিয়ন বেগম। তিনি জানালেন,তার স্বামী তাতে ফেলে অন্যত্র চলে যাওয়ার এক সন্তান নিযে তিনি মহা বিপদে পড়েন। কিছু দিনপর বাবা-মা আর ভাই-বোনেরাও যেনো ভারি বোঝা মনে করা শুরু করে। বর্তমানে এ পেশায় জড়িয়ে তিনি প্রতিমাসে আয় করেন, আঠারো হাজার টাকা। সে টাকা দিয়ে সন্তানের পড়া-লেখার পাশাপাশি দিব্যি সংসার চলছে, তার। কিছু জমিও কিনেছেন তিনি। আগামীতে তিনি বাড়ি তৈরির স্বপ্নও দেখছেন।এমনি ভাবে অসংখ্য নারী আজ স্বাবলম্বী।

সংসারে অভাব-অনটনে অনেকে ছেড়ে দিয়েছিলেন পড়া-লেখা। এসব কিশোরী-যুবতি এখন এ ভিন্নতর পেশায় খুঁজে পেয়েছেন নিজের আত্ম-কর্মসংস্থান। উপার্জিত অর্থ দিয়ে জোগাচ্ছেন, নিজের পড়া-লেখার খরচ। হেয়ার ফ্যাশন নামে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলাসদর সহ কয়েকটি গ্রামে চালিয়ে আসছে,এ ব্যতিক্রম প্রকল্প। এতে হয়েছে,অনেকের কর্মসংস্থান।

স্থানীয় সংসদ সদস্য শিবলী সাদিক জালালেন, এ পেশায় জড়িয়ে এলাকার ১৫ টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার পরিবাওে ৫০ হাজার নারী পেয়েছে, অভাব-দারিদ্রতা থেকে মুক্তি।তাদের তৈরি হেয়ার ক্যাপ সহ চুলের বিভিন্ন পন্য চলে যাচ্ছে, চীন, জাপান, ভিয়েতনাম, মিয়ানমার, আমেরিকা সহ মধ্যপ্রাচের বিভিন্ন রাষ্ট্রে।

তিনি বলেন, অন্যান্যরাও গ্রহণ করুক এমন উদ্যোগ। যাতে অবহেলিত নারীরা সম্পৃক্ত হতে পারবে কর্মসংস্থানে। স্বাবলম্বী হবে অনেক নারী। দূর হবে সংসারের অভাব-অনটন।

উচিষ্ট চুলগুলো মূল্যবান পণ্যে রূপান্তর করছেন,অবহেলিত নারী নিপূণ কারিগরেরা। আর এ পণ্যটির দেশ-বিদেশে চাহিদা বাড়ায় এতে আত্ম-কর্মসংস্থানের পাশাপাশি স্বাবলম্বী হচ্ছেনঅনেকেই।

(এস/এসপি/মার্চ ০৭, ২০২২)

পাঠকের মতামত:

০৮ ডিসেম্বর ২০২২

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test