E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

ভেড়া পালনে দিনবদলের স্বপ্ন দেখছেন গাইবান্ধার  চরের নারীরা

২০২২ নভেম্বর ০৬ ১৫:০১:৩৯
ভেড়া পালনে দিনবদলের স্বপ্ন দেখছেন গাইবান্ধার  চরের নারীরা

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধা : ব্রহ্মপুত্র নদসহ তিস্তা ও যমুনা নদীবেষ্টিত গাইবান্ধার চরাঞ্চলগুলোতে পিছিয়ে পড়া নারীরা ভেড়া পালন করে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। বেসরকারি সংস্থার সহযোগিতায় তারা পালন শুরু করেছেন দেশি ও উন্নত জাতের ভেড়া। এর পাশাপাশি উঠানে সবজি চাষ করে সংসারে সচ্ছলতা নিয়ে আসছেন। তাতে নারীদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার পরিবর্তনও শুরু করেছে। এতে দিনবদলের স্বপ্ন দেখছেন তারা।

সম্প্রতি জেলার সদর, সুন্দরগঞ্জ ও ফুলছড়ি উপজেলার বেশ কিছু চরাঞ্চলে ঘুরে দেখা গেছে, এখানকার দরিদ্র নারীরা ঝুঁকে পড়ছে ভেড়া পালন ও শাক-সবজি চাষে। ফ্রেণ্ডশিপ নামের বেসরকারি উন্নয়ন একটি সংস্থার অর্থায়নে চরাঞ্চলবাসীর স্বাবলম্বী করতে কাজ করছে। স্থানীয়রা জানায়, চরাঞ্চলের জমি সবজি চাষের জন্য খুবই উপযোগী। সেই সঙ্গে চরের পরিবেশে ভেড়া পালনের জন্য উপযোগী হওয়ায় চরবাসীদের জন্য কাজ করছে এ সংস্থা। ওই তিন উপজেলার দুই শতাধিক দরিদ্র মানুষকে বিভিন্ন সবজি বীজ ও ভেড়া সরবরাহ করে। যাতে সুবিধাভোগীরা অর্থনৈতিকভাবে সচ্ছল হতে পারে। এতে এএসডি প্রকল্পের আওতায় নির্বাচিত চরবাসীদের মাঝে ফ্রেণ্ডশিপ বিভিন্ন সবজি ও উচ্চ জাতের মানসম্পন্ন বীজ বিতরণ করেছে।

এরআগে, ক্লাইমেট অ্যাকশন সেক্টরের অধীনে এএসডি প্রকল্পের উদ্যোগে উপকারভোগীদের সফল সবজি চাষ এবং ভেড়া পালনের উপর প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়।

এ প্রকল্প থেকে সহায়তা প্রাপ্তির পর সুবিধাভোগীরা তাদের নিজ নিজ বসতভিটাতে সবজি চাষ এবং প্রকল্প কর্মকর্তাদের সরাসরি তত্ত্বাবধানে চরের জমিতে ভেড়া পালনে মনোযোগ দেন এবং সফল হন। যার ফলে সবজি চাষ ও ভেড়া পালন থেকে অর্থনৈতিক মুনাফা অর্জন করছে এবং তাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থারও পরিবর্তন শুরু করেছে।সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চর মাদারবাড়ির নারী সুবিধাভোগী মতিজান বেগম জানান, তার পরিবারের অন্য ৫ সদস্যের সঙ্গে তিনি কষ্টে দিনাতিপাত করছিলেন। তার স্বামী দিনমজুর অর্থাৎ দিন আনে দিন খেতেন। এ অবস্থায় ওই প্রকল্পের সহায়তায় নিজের বসতভিটাতে সবজি চাষ ও খোলা চরে ভেড়া পালন শুরু করেন। ধীরে ধীরে একটি ভেড়া থেকে সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬টি। এর মধ্যে চারটি ভেড়া বিক্রি করে তিনি অর্থনৈতিক লাভবান হয়েছেন।

আনজুমান আরা বেগম নামের আরেক সুবিধাভোগী জানান, অন্যান্য সুবিধাভোগীদের মতো তিনিও প্রকল্প থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা দামের একটি ভেড়া ও ষোল জাতের সবজির বীজ পেয়েছেন। চরের জমিতে ভেড়া পালন এবং বসতবাড়িতে সবজি চাষের পর ভেড়ার সংখ্যা বেড়েছে। পাশাপাশি বসতভিটাতেও ব্যাপকহারে লাউসহ সবজি চাষ সম্প্রসারিত হয়েছে। এখন ভেড়ার দাম দাঁড়িয়েছে ২৮ হাজার টাকা।

তিনি আরও বলেন, এখন আমাদের পরিবারের চাহিদা মিটিয়ে স্থানীয় বাজারে সবজি বিক্রি করেও ২৪ হাজার টাকা আয় করছি। উপার্জিত অর্থ সংকটময় সময়ে অর্থনৈতিক সমস্যা ছাড়াই পারিবারিক ব্যয় বহন করতে সহায়তা করবে।

এ বিষয়ে এএসডি প্রকল্পের ব্যবস্থাপক আশরাফুল ইসলাম মল্লিক বলেন, মতিজান এবং অনজুমানের মতো আরও অনেক নারী ফ্রেণ্ডশিপের প্রকল্প দ্বারা আয়বর্ধক কর্মকাণ্ডে জড়িত হওয়ার পরে লাভবান হচ্ছেন। তাদের ভাগ্য পরিবর্তনের সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে।

(এসআইআর/এএস/নভেম্বর ০৬, ২০২২)

পাঠকের মতামত:

০৮ ডিসেম্বর ২০২২

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test