E Paper Of Daily Bangla 71
Janata Bank Limited
Technomedia Limited
Mobile Version

সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে লন্ডনে বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে লেবার কাউন্সিলর পুষ্পিতা গুপ্তের আমরণ অনশন

২০২১ অক্টোবর ১৯ ২১:১৭:০৬
সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে লন্ডনে বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে লেবার কাউন্সিলর পুষ্পিতা গুপ্তের আমরণ অনশন

উত্তরাধিকার ৭১ নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের  উপর নারকীয় নির্যাতন নিপীড়ন, হামলা ভাঙচুর লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও নৃশংস হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনের সামনে আজ মঙ্গলবার সকাল ৬ টায় লন্ডনে বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে আমরণ অনশন শুরু করেছেন সেক্যুলার মুভমেন্ট বাংলাদেশের সভাপতি ও লন্ডন রেডব্রিজ কাউন্সিলের লেবার দলীয় কাউন্সিলর পুষ্পিতা গুপ্ত।

বেলা বাড়ার সাথে সাথে সেখানে বাড়তে থাকে ভিড়। তারা হাতে লিফলেট, প্ল্যাকার্ড, পোস্টার নিয়ে দাঁড়িয়ে পুষ্পিতা গুপ্তের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেন। নেট দুনিয়া বলছে, পুষ্পিতা গুপ্ত ৬ দফা দাবিতে ওই আমরণ অনশন শুরু করেছেন। সেই দাবিগুলো হচ্ছে: ১.বছরের সবচেয়ে পবিত্র ধর্মীয় উৎসব উদযাপনের সময় হিন্দুদের রক্ষা না করার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে অনতিবিলম্বে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে। ২.সমস্ত হিন্দু ধর্মীয় উৎসব এবং হিন্দুদের জীবন ও সম্পদের সুরক্ষার জন্য পুলিশ এবং প্রশাসনকে জবাবদিহির আওতায় এনে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। ৩.দেশে সংঘঠিত নৃশংসতার শিকার মানুষ ও পরিবারগুলো যেন সুষ্ঠু বিচার পায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে এবং উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। ৪.সংখ্যালঘু সুরক্ষায় কঠোর আইন প্রয়োগ করতে হবে এবং সকল অপরাধীদের বিচার ও তাদের অপরাধকে উগ্রবাদী সন্ত্রাস হিসেবে বিবেচনা করতে হবে। ৫.নিরীহ নিহতদের পরিবারের প্রতি দুঃখ প্রকাশ ও সংহতি প্রকাশের জন্য হাই কমিশন প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা অর্ধনিমিত রাখতে হবে। ৬.ভবিষ্যতের জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার করে হিন্দুদের বিরুদ্ধে ছদ্ম ব্লাসফেমি আইনের প্রথা বন্ধ করতে হবে এবং একটি সহনশীল ও উদার তরুণ প্রজন্ম তৈরির জন্য প্রতিটি স্তরে শিক্ষা পাঠ্যক্রম ধর্মনিরপেক্ষ ও মানবিক দর্শনের আলোকে সংস্কার করাসহ রাষ্ট্রের ধর্মনিরপেক্ষ চরিত্রকে ১৯৭২ সালের সংবিধানের আলোকে শক্তিশালী করতে হবে।

সেই সাথে সকল ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং তাদের নিজস্ব ধর্ম পালনের অধিকার অবশ্যই দিতে হবে।

আমরণ অনশনকালে সেক্যুলার মুভম্যান্ট বাংলাদেশের সভাপতি ও লন্ডন রেডব্রিজ কাউন্সিলের লেবার দলীয় কাউন্সিলর পুষ্পিতা গুপ্ত বলেন, আগে আমাদের দাবিগুলো মেনে নেওয়া হোক। যতক্ষণ মানা না হবে ততক্ষণ আমরা এখানে অবস্থান করবো। তারপর আমরা বাকিটা ভাববো। অতীতে বিচারহীনতার সংস্কৃতি দেখেছি আমরা। আমাদের দাবি আমরা যে যেখানে আছি সবাই যেন সবার পাশে থাকি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেন আমাদের সেই সুরক্ষা দেন। আমরা এবার প্রকাশ্যে অপরাধীদের সুষ্ঠু বিচার চাই। তিনি এসময় আরও বলেন, আমাদের দাবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পৌঁছে দিতে হবে। সবার সুরক্ষার নিশ্চয়তা দিতে হবে।

এসময় বাংলাদেশের দূতাবাসের মিনিস্টার কনস্যুলার মো. মঈন খান তাদের দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেন। তিনি বলেন, যারা এ সহিংসতা করেছেন তারা চায় আমরা এবং আপনারা মুখোমুখি দাঁড়াই। আমাদের সম্পর্কের অবনতি টেনে আনতে তারা এসব করছে। আপনাদের মতো বাংলাদেশে আমাদেরও স্বজন আছে, দাদা, দিদি আছে। আমারও হৃদয় পুড়ছে। আমিও বাংলাদেশেরই একজন। আমাদের সংবিধানও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে এখন সবকিছু নিয়ন্ত্রণে আছে। সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে। আপনাদের দাবিগুলো আমরা শুনেছি। হাই কমিশনারের মাধ্যমে আমরা দাবিগুলো সরকারের কাছে উপস্থাপন করব।

অনশনরত একজন বলেন, আমরা সবাই দেশের বাইরে থাকি আপনজনদের ছেড়ে। তারপর এমন ঘটনা আমাদেরকে অনেক চিন্তিত করে তোলে। আমরা চাই আগের মতো হিন্দু মুসলিম আমরা সবাই পাশাপাশি থেকে কাজ করবে। এসময় প্রবাসী বাঙালিদের মধ্যে সুশান্ত দাস গুপ্ত, জুয়েল রাজ প্রমুখ উপস্থিত হয়েছেন।

(পিএস/এসপি/অক্টোবর ১৯, ২০২১)

পাঠকের মতামত:

০৫ ডিসেম্বর ২০২১

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test