E Paper Of Daily Bangla 71
World Vision
Walton New
Mobile Version

সময় পেলেই সাঁতার কাটুন

২০২৪ এপ্রিল ১৮ ১৭:৩৪:৪৯
সময় পেলেই সাঁতার কাটুন

লাইফস্টাইল ডেস্ক : সাঁতার একটি অ্যারোবিক এক্সারসাইজ। এই ব্যায়াম নিয়মিত করলে শরীরের সব অংশের ব্যায়াম হয়। সাঁতার কাটার সময় দেহের প্রায় সব পেশি ও জয়েন্ট সক্রিয় থাকে। ফলে স্বাস্থ্যের সার্বিক উন্নতি হয়। আর সব থেকে বড় কথা, এই ব্যায়াম করলে হাঁটুর ওপর চাপও পড়ে না। তাই নিয়মিত সাঁতার কাটুন।

দিনে ১০ থেকে ১৫ মিনিট সাঁতার কাটতে পারলেই হাঁটুর ব্যথার উপশম হবে, ব্যথানাশক ওষুধের আর প্রয়োজন পড়বে না। আসুন জেনে নেওয়া যাক নিয়মিত সাঁতার কাটলে শরীরের আরও কী কী উপকার হয়?

সাঁতারে শরীরের একাধিক পেশি একসঙ্গে কাজ করে। স্রোতের সঙ্গেই হোক বা বিপরীতে, পেশির অনেকটা শক্তি যায় সাঁতারে। তার ফলে নানা ধরনের ব্যথা, যন্ত্রণায় আরাম দিতে পারে সাঁতার। অনেক ধরনের পেশি আরাম পায়। হাড়ে ব্যথা, আর্থারাইটিসের সমস্যা থাকলেও কমে।

পেশির পাশাপাশি ফুসফুস এবং হৃদযন্ত্রেরও উপকার করে সাঁতার। শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক করে। শরীরের বিভিন্ন অঞ্চলে রক্ত চলাচল বাড়ায়। এর ফলে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ে। সেই সঙ্গে বাড়ে কর্মক্ষমতা।

সাঁতার কাটলে শরীরের সব পেশি একসঙ্গে কাজ করে। গোটা শরীরের ব্যায়াম হয়। ওজন ঝরানোর জন্য এটি তাই খুব কাজের। কারণ একসঙ্গে শরীরের বিভিন্ন অংশ থেকে মেদ ঝরাতে সাহায্য করে সাঁতার।

গবেষণা বলছে, সাঁতারের জন্য কমে অস্টিওপরেসিসের সমস্যা। সাঁতার কাটলে হাড় মজবুত হয়। বেশ কিছু মানুষ ঘুমের সমস্যায় ভোগেন। তাদের জন্য সাঁতার কাটা খুব ভালো।

সাঁতার কাটালে ঘুম ভালো হয়। শরীরে টাইগ্লিসারাইডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে সাঁতার কাটার জন্য। মানসিক স্বাস্থ্যের সঙ্গে সাঁতারের সম্পর্ক আছে। সাঁতার কাটলে আপনার স্ট্রেস অনেকটাই কমবে।

(ওএস/এসপি/এপ্রিল ১৮, ২০২৪)

পাঠকের মতামত:

২৩ জুলাই ২০২৪

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে
Website Security Test